Wednesday , October 23 2019

যে নিয়মে রসুন খেলে ১০০০ গুন বেড়ে যায় পুরুষের গোপন ক্ষমতা….

ভালোভাবে বেঁচে থাকার জন্য যেটা প্রাথমিক ভাবে দরকার সেটা হল আমাদের সুস্থ থাকা। সে যে কাজই হোক, শরীর সুস্থ থাকলে কাজে এনার্জি আসে। শরীর সুস্থ থাকলে সাথে মনও ভালো থাকে। এই শরীর সুস্থ রাখার উপায় আছে আপনার নিজের হাতের মুঠোয়। সেই জিনিসটি আপনার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের মধ্যেই পড়ে। কিন্তু অনেকেই জানেন না সেই জিনিসের বিষয়ে।

জিনিসটি হল রসুন, যা আপনার বাড়িতে প্রতিদিনের সব্জির ঝুড়িতেই থাকে। যা প্রতিদিন খেলে আপনার শরীরে কোন রোগ বাসা বাঁধতে পারবে না। কিন্তু আপনি হয়তো ভাববেন যে আপনি তো রসুন রোজ খান। কিন্তু রান্নায় খেলে তেমন কোন উপকার নেই।

উপকার হল কাঁচা রসুনে। বিজ্ঞানীরা বলেন যে শরীর যদি কোন কারনে অক্ষম হয়ে যায় তাহলে রসুন পারে সেই হারিয়ে যাওয়া ক্ষমতা ফিরে আনতে। এটি বৃদ্ধি করে আপনার যৌ-ন ক্ষমতা। বর্তমান ভেজালের যুগে পরিবেশ দূষণের সময় মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়ছে। কমে যাচ্ছে তাদের শারীরিক ক্ষমতাও।

বিশেষ করে পুরুষদের মধ্যে শারীরিক অক্ষমতা বলতে যৌ-ন অক্ষমতার কথা বলা হয়েছে। কমে যাচ্ছে শুক্রানুর পরিমান। অধিকাংশ পুরুষ অক্ষম হয়ে পড়ছে। এসব হচ্ছে বর্তমান যুগের কাজের চাপ, অনিয়মিত জীবনযাত্রার কারনে।বিজ্ঞানিরা জানিয়েছেন প্রতি মিলি স্পার্মে ২০ মিলিয়ন শু’ক্রাণু থাকে। তা না হলে সেই স্পার্ম অনুর্বর হয়। এরকম সমস্যা থাকলে আপনাকে একমাত্র বাচাতে পারে রসুন। কিন্তু যখন তখন রসুন খেয়ে নিলে কোন কাজ হবেনা। রসুন খাওয়ার কিছু নিয়ম আছে। জেনে নিন –

১। সকালে উঠে খালি পেটে এক কোয়া রসুন খাওয়া শরীরের জন্য খুব উপকারী। সেটা সকলেই খেতে পারেন। ২। কাঁচা রসুন আপনার যৌ-ন ইচ্ছা বারাতেও সাহায্য করে। তার জন্য আপনাকে প্রতিদিন খেতে হবে রসুন।

৩। যারা পড়ন্ত যৌবনে আছেন তাড়া প্রতিদিন রসুন হালকা আঁচে ঘিয়ে ভেজে খান। তাহলে আপনার যৌবন আরো কিছুদিন ধরে রাখতে পারবেন। কিন্তু তার পর এক গ্লাস গরম দুধ খেতে হবে। তাহলে খুব ভালো কাজে আসবে।

৪। বয়স্কদের চামড়া কুঁচকে গেলে তা টানটান করতে সাহায্য করে রসুন। কিন্তু শরীরের জন্য কোন কিছুই অতিরিক্ত ভালো নয়। রসুন শরীরে রক্ত জমাট বাঁধতে দিতে বাধা দেয়। তাই কোথাও কেটে গেলে সহজে রক্ত বন্ধ হতে চায়না।

বিজ্ঞান বলে একজন প্রাপ্ত বয়স্ক সুস্থ্য পুরুষ একবার মেলামেশা করলে …

বিজ্ঞান বলে একজন প্রাপ্ত বয়স্ক সুস্থ্য পুরুষ একবার সহবাস করলে যে পরিমান বীর্য নির্গত হয় তাতে ৪০ কোটি শুক্রাণু থাকে। তো, লজিক অনুযায়ি মেয়েদের গর্ভে যদি সেই পরিমান শুক্রানু স্থান পেতো তাহলে ৪০ কোটি বাচ্চা তৈরি হতো! এই ৪০ কোটি শুক্রাণু, মায়ের জরায়ুর দিকে পাগলের মত ছুটতে থাকে, জীবিত থাকে মাত্র ৩০০-৫০০ শুক্রাণু।

আর বাকিরা ? এই ছুটে চলার পথে ক্লান্ত অথবা পরাজিত হয়ে মারা যায়। এই ৩০০-৫০০ শুক্রাণু, যেগুলো ডিম্বানুর কাছে যেতে পেরেছে। তাদের মধ্যে মাত্র একটি মহা শক্তিশালী শুক্রাণু ডিম্বানুকে ফার্টিলাইজ করে, অথবা ডিম্বানুতে আসন গ্রহন করে। সেই ভাগ্যবান শুক্রাণুটি হচ্ছে আপনি কিংবা আমি, অথবা আমরা সবাই।

কখনও কি এই মহাযুদ্ধের কথা মাথায় এনেছেন?

১। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন” তখন ছিলনা কোন চোঁখ হাত পা মাথা, তবুও আপনি জিতেছিলেন।

২। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন”তখন আপনার ছিলোনা কোন সার্টিফিকেট, ছিলোনা মস্তিষ্ক তবুও আপনি জিতেছিলেন।

৩। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন তখন আপনার ছিলনা কোন শিক্ষা, কেউ সাহায্য করেনি তবুও আপনি জিতেছিলেন।

৪। আপনি যখন দৌড় দিয়েছিলেন তখন আপনার একটি গন্তব্য ছিলো এবং সেই গন্তব্যের দিকে উদ্দেশ্য ঠিক রেখে একা একাগ্র চিত্তে দৌড় দিয়েছিলেন এবং শেষ অবধি আপনিই জিতেছিলেন।

– এর পর, বহু বাচ্চা মায়ের পেটেই নষ্ট হয়ে যায় । কিন্তু আপনি মারা যান নি, পুরো ১০ টি মাস পূর্ণ করতে পেরেছেন ।

– বহু বাচ্চা জন্মের সময় মারা যায় কিন্তু আপনি টিকেছিলেন ।

– বহু বাচ্চা জন্মের প্রথম ৫ বছরেই মারা যায়। আপনি এখনো বেঁচে আছেন ।

– অনেক শিশু অপুষ্টিতে মারা যায়। আপনার কিছুই হয় নি ।

– বড় হওয়ার পথে অনেকেই দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছে, আপনি এখনো আছেন ।

Check Also

وزير الرياضة يؤكد على أهمية دعم المواهب فى أفريقيا

أكد سيادة الدكتور أشرف صبحي وزير الشباب والرياضة فى حوار صحفى له أن انطلاق فاعليات …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *